আপনার পছন্দমত যে কোন ধরনের লেখা হতেপারে সেটা কোন হাসির ঘটনা (মজার কোন স্মৃতি /কৌতুক) , শিক্ষণীয় কোন ঘটনা, কবিতা , এই সাইটের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ যে কোন লেখা বা মতামত ইত্যাদি পোস্ট করতে পারেন। মানসম্মত লেখা নামসহ সাইটে পাবলিশ করা হয়।
আইডি নং- ভগবান শ্রীকৃষ্ণ সম্বন্ধে প্রেরকের নামঃ-
13 ব্রহ্মসংহিতায় প্রথম শ্লোকে বলা হয়েছে :

ঈশ্বরঃ পরমঃ কৃষ্ণঃ সচ্চিদানন্দবিগ্রহঃ ।
অনাদিরাদির্গোবিন্দঃ সর্ব্বকারণকারণম্।।
Test
19 জেনে নিন ভগবানকে কেন বিভিন্ন নামে ডাকা হয় এবং তাঁর এই নাম ধারনের বিশ্বেষত্ব কি?
ভগবান:- তিনি ষড়ৈশ্বর্য পূর্ন,তাই তাঁর নাম ভগবান। কৃষ্ণ :- কৃষ্ণ শব্দের অর্থ হল সর্বাকর্ষক। তিনি সকলকে আকর্ষন করেন।তাই তাঁর নাম কৃষ্ণ ।
গোবিন্দ:- তিনি গাভী ও ইন্দ্রিয়কে আনন্দ দান করেন বলে তাঁর নাম গোবিন্দ। গোপাল:- তিনি গো(গরু)পালন করেন বিধায় তাঁর নাম গোপাল।
মনস্বী কৃষ্ণ দাস
20 জেনে নিন ভগবানকে কেন বিভিন্ন নামে ডাকা হয় এবং তাঁর এই নাম ধারনের বিশ্বেষত্ব কি?
মুকুন্দ:- তিনি সকলকে মুক্তি দান করেন বলে তাঁর নাম মুকুন্দ। মাধব:-তিনি সকলকে কৃপা করেন বলে তাঁর নাাম মাধব। হৃষিকেশ:- তিনি সকল ইন্দ্রিয়ের অধিপতি ও পরিচালক। তাই তাঁর নাম হৃষিকেশ।
মধুসুদন:- মধু নামক দানবকে হত্যা করেছেন বলে তাঁর নাম মধুসুদন। কেশিনী সুদন:- কেশি নামক দানবকে হত্যা করেছেন বলে তাঁর নাম কেশিনীসুদন।
বংশীধারী:- তিনি হাতে বংশী ধারন করে আছেন বলে তাঁর নাম বংশীধারী। পার্থসারথী:- তিনি কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে অর্জুনের রথের সারথি(চালক)হয়েছিলেন বলে তিনি পার্থসারথি ।
জগন্নাথ:- তিনি জগতের নাথ ও জীবের করুনার সাগর,তাই তিনি জগন্নাথ।
মনস্বী কৃষ্ণ দাস
21 জেনে নিন ভগবানকে কেন বিভিন্ন নামে ডাকা হয় এবং তাঁর এই নাম ধারনের বিশ্বেষত্ব কি? গিরিধারী:- তিনি বৃন্দাবনে গিরিগোবর্ধন পর্বত ৭ দিন ৭ রাত্র কনিষ্ঠা আঙ্গুলের উপর রেখেছিলেন বলে তাঁর নাম গিরিধারী। মদন মোহন:-তাঁর রুপ দর্শনে সকলে মোহিত হন বলে তাঁর নাম মদনমোহন।
ক্ষীরচোরা গোপীনাথ:- তিনি মাধবেন্দ্র পুরীর জন্য ক্ষীর চুরি করে রেখেছিলেন বলে তাঁর নাম ক্ষীর চোরা গোপীনাথ। জনার্দন:- তিনি সমস্ত জীবের প্রতিপালক,তাই তিনি জনার্দন। বিষ্ণু:- তিনি সমস্ত যজ্ঞের ভোক্তা,তাই তিনি বিষ্ণু।
মনস্বী কৃষ্ণ দাস
22 কুরুক্ষেত্রের রণাঙ্গনেঃ-------- আঠারো অক্ষৌহিণী সেনার কলকাকলিতে কুরুক্ষেত্র মুখরিত। দ্বিধাভক্ত সেনার মধ্যে কুন্তিপুত্র সমভিব্যাহারে বাসুদেব শ্রীকৃষ্ণ দন্ডায়মান। ধীর, স্থীর, প্রশান্ত চিত্তে সন্মুখে দন্ডায়মান মৃত্যু পথ যাত্রী বীর সেনানীদের অবলোকন করছেন তিনি। সহসা অর্জুনের ডাকে সম্বিত ফেরে বাসুদেবের। সজল নেত্রে হতচকিত অর্জুন বলে ওঠে সখা, আমি এ যুদ্ধ করব না। সেকি! কেন? প্রত্তুত্তরে পৃথাপুত্র বলে ওঠে, এ স্বজনবধ কি করে করব? যে পিতামহের কোলে পিঠে আমরা মানুষ হলাম, যে গুরুর অসীম করুণায় আমি যুদ্ধ বিদ্যায় পারঙ্গম হলাম সেই গুরু দ্রোণ ও প্রাজ্ঞ কৃপাচার্য্যের সঙ্গে যুদ্ধ করার চেয়ে আমার মৃত্যু ও শ্রেয়। তাছাড়া এত আত্মীয় স্বজন ও প্রজাকুলকে নিধন করে কাকে নিয়ে রাজত্ব করব? আমায় ক্ষমা কর সখা, আমি চাই না অমন রাজ্যপাট। আমায় ত্রিলোক দান করলেও এ যুদ্ধে নেই। এই এত সংখ্যক লোক নিধনে তাদের ভার্যা ও মাতাগন ও শিশু সন্তানের কথা ভেবে আমি শিউরে উঠছি। আমার শরীর অবশ হচ্ছে। গান্ডীব ধরার শক্তি না থাকায় পড়ে যাচ্ছে। আমি অসহায়, বিবশ বোধ করছি দরকার নাই আমার এই ভয়ংকর যুদ্ধে। আর তুমি ভেবে দেখ সখা, পতিহারা এতগুলো স্ত্রীলোকের কি হবে? ক্রমে তো তারা চরিত্রহীনা হয়ে পড়বে। ভিন্ন প্রজাতির পুরুষের সঙ্গে তারা মিলন করতে বাধ্য হবে পরিনামে বর্ণশঙ্কর সৃষ্টি হবে। সংসারে বিশৃঙ্খলা দেখা দিবে অতএব....... এক নাগাড়ে কথাগুলি বলে তৃতীয় পান্ডব বীর যোদ্ধা কুন্তিপুত্র অর্জুন পান্ডুর বদনে রথ পরে বসে পড়লেন। জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে পার্থ পানে চেয়ে কৃষ্ণ বললেন হে মহাবাহু এ তুমি কি বলছো? তুমি যে বড় জ্ঞানী ভাবছো নিজেকে? নিজেকে সর্বজ্ঞ ভাবার আগে এতক্ষণ যা বললে তার অর্থ জান? তুমি এক ক্ষত্রিয় অন্যায়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করাই তোমার ধর্ম। যুদ্ধ না করলে তুমি ধর্মভ্রষ্ট হবে। তোমার যশ, খ্যাতি সব বিনষ্ট হবে। এক পলায়নপর সৈনিক হিসেবে তুমি সংসারে নিন্দিত হবে। তুমি ভীতু ও কাপুরুষের মতো আচরণ করো না। কুরুকুল তিলকের এ হেন দৈন্যতা নিন্দনীয়। এখন বলছ যুদ্ধ করব না! কেন ভাই আগে কি যুদ্ধ কর নি? বনবাস কালে তোমাদের কুটিরের সামনে দিয়ে সদলবলে শতভাই সহ দুর্যোধন যখন তোমাদের দৈন্যদশা উপভোগ করার মানসে মহানন্দে যাচ্ছিলেন মনে পড়ে? কিছুদুর গিয়ে তারা চিত্ররথ নামক গন্ধর্বের কাননে ফলাদির লোভে তছনয় করায় গন্ধর্বগণ দুর্যোধনদের যুদ্ধে পরাজিত করে বন্ধন করে রাখে তখন যুধিষ্ঠিরের কথায় গন্ধর্বদের সঙ্গে ভয়ানক যুদ্ধ কর নি? এরপর দেবাদিদেব শঙ্করের সঙ্গে যুদ্ধ কর নি? বিরাট পুত্র উত্তরকে সঙ্গে নিয়ে এই সেনানীদের সঙ্গে যুদ্ধ করে গোসম্পদ উদ্ধার করনি? এখন তোমার মনে ভয় আসল কেন? মহাসমরের মহাপ্রস্তুতি তো অনেকদিন ধরেই চলছিল তুমি জানতে না কাদের সঙ্গে তোমাকে যুদ্ধ করতে হবে? আজ তাদেরকে সামন দেখে তোমার ভয়ের সঞ্চার হলো? ধিক! তোমার ক্ষাত্ররক্তে! ধিক! তোমার বলবীর্যে! এই বলে মধুসূদন যুদ্ধানাভিলাষি অর্জুনকে তিরস্কার করতে লাগলেন। ক্রমশঃ------ পরিমল ঘোষ। ইটাহার, উত্তর দিনাজপুর। পোষ্ট- ইটাহার ৭৩৩১২৮ মোবাইল নং- ৯৪৩৪৪৫৮২৮৮
26 হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে। Dip Roy Sudeb. Sultanpur, Bochaganj, Dinajpur. 01768859647
34 জয় শ্রীকৃষ্ণ !!! অনিন্দ্য সরকার রূপম। ০৩.০৮.২০১৯
44 বাংলায় রামানন্দ সাগরের শ্রীকৃষ্ণ লীলামৃত, ভিডিও

এই লিংকে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বিভিন্ন লীলা অমৃত "http://www.anupamasite.com/krishna_video.php" (ভিডিও)আপলোড করা আছে , দেখতে পারেন।
অনিন্দ্য সরকার রূপম এর পক্ষে (বাবা) ৩০.০৯.২০১৯
45 বাংলায় রামানন্দ সাগরের শ্রীকৃষ্ণ লীলামৃত, ভিডিও এই লিংকে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বিভিন্ন লীলা অমৃত (ভিডিও) আপলোড করা আছে , দেখতে পারেন। অনিন্দ্য সরকার রূপম এর পক্ষে (বাবা) ৩০.০৯.২০১৯
লক্ষ্য করুন=>  সবার লেখাগুলো সরাসরি আমাদের ডাটাবেজে জমা হবে, এবং পাবলিশ হয়ে যাবে তাই আপত্তিকর কোন লেখা চোখে পড়লে সাথে সাথে এডমিনকে জানাতে বা মেইল করতে ভুলবেন না। যে কোন লেখা বা মতামত পোস্ট করতে এখানে ক্লিক করুন ।

অনলাইন ইউজার কর্তৃক আপলোডকৃত বিভিন্ন লেখা বা কৌতুকগুলো => সনাতন ধর্মীয়, ভগবান শ্রীকৃষ্ণ , দেব-দেবী , সাম্প্রতিক বিষয় , আপনার পছন্দ , প্রেমের কবিতা , প্রার্থনা, সাম্প্রতিক ঘটনা , বিবিধ বিষয়ে , হাসির ঘটনা, স্বামী - স্ত্রী , বিখ্যাতদের নিয়ে, বোকা ও বুদ্ধিমান , ডাক্তার ও রোগী , শিক্ষক ও ছাত্র , অলসতা , কৃপণতা , চাপাবাজি , প্রেমিক-প্রেমিকা , মাতাল-পাগল , বন্ধুদেরকে নিয় , বিবিধ কৌতুক